Romantic Love Story | Bangla Best Love Story In 2019 Part (7)

রাস্তায় এক্সিডেন্ট করেছে আমি তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসছি আপনার নাম্বার টা ওপরে দেখলাম ওনার মোবাইলে তাই আপনাকেই কল দিলাম জলদি চলে আসুন মেয়েটার অবস্থা খারাপ। এই কথা শুনার পর মনে হলো পুরো দুনিয়া টা ঘুরে গেলো। এই কি শুনলাম আমি???? ওপর পাশের লোকটাকে কিছু না বলেই কল কেটে ছুটে বের হয়ে গেলাম হাসপাতালের দিকে। মাথাই কোনো চিন্তা আসছে না শুধু আসছে কিভাবে জলদি যাওয়া যায়। সামনে কোনো রিকশা নাই কিজে করি , কিছুদুর যেতে দেখি আমার কলেজ বন্ধু তার বাইক নিয়ে নিয়ে আমার দিকেই আসছে কোনো কিছু না ভেবে ওর বাইক টা থামালাম। আমি - দোস্ত নাম যলদি। - কেনো কি হয়েছে??? আর এতো হাপাচ্ছিস কেনো??? - এতো কথা বলার টাইম নাই আমার তুই পিছে ওঠ যলদি। - ধুর সালা কিছু বলেও না, আচ্ছা চল। ওর বাইকটা আমি চালাচ্ছি খুব দ্রুত চলে আসলাম মেডিকেলে,আমি আর আমার বন্ধু খুজছি মিশু কে, কিছুক্ষণ খোজার পর একটা রুমে পেলাম তাকে দেখছি বসে বসে ফোন টিপছে ওর কাছে গিয়ে ওর কি হয়েছে তা জানার চেষ্টা করছিলাম। - কি হয়েছে???? তুমি নাকি এক্সিডেন্ট করছো??? কিছু হয়নি তো?? - আমার কি হবে??? আর আমার কিসের এক্সিডেন্ট??? - মানে কি?????? - কিছু না তুমি এতো হাপাচ্ছো কেনো??? - তোমার এক্সিডেন্ট হয়েছে শুনে চলে আসলাম কিন্তু তোমার তো কিছু হয়নি সুন্দর ভাবেই ফোন টিপছো। আমাকে তাহলে কে কল করলো তোমার নাম্বার থেকে আর তুমি এইখানে কেনো??? - আরে এতো কিছু একসাথে কেউ জিজ্ঞেস করে?? - তুমি উওর দাও। - আমি এইখানে আমার এক বান্ধবীর জন্য আসছি তার বেবী হবে তাই। - আচ্ছা ভালো আর তোমার নাম্বার থেকে আমাকে কল কে দিয়েছিলো??? - আমার বন্ধু। - মানে?? - মানে হলো আমি ওকে বলেছিলাম তোমাকে এগুলো বলতে আমার কিছু হলে তুমি কি করো ওইটা দেখার জন্য। ( মুখ গুজে হাসছে) - কিহহহহহহহহহ??????? - হুম। ( ভাব নিয়ে) - ধুর আজব মেয়ে একটা আমি কিনা কি মনে করে ছুটে চলে আসলাম এমন আর আমার সাথে করবা না। ( ধমক দিয়ে) - হুম আচ্ছা করবো না কিন্তু তুমি এতো যলদি চলে আসবা ভাবতেও পারিনি বাহ। - চুপপপপপপ। - হুমম চুপ। ( হাসছে লজ্জা নাই একটুও) আমি আর কিছু না বলে চলে আসছিলাম রাগ উঠছিলো খুব, আসার সময় দরজায় একজন দৌড়ে ভেতরে মিশুর কাছে গেলো আমাকে অনেক জরে ধাক্কা দিসে কিছু বলার আগেই৷ দেখি কান্না কান্না ভাব মুখটা কালো হয়ে গেছে চিন্তায়। মিশুর সাথে কি জেনো কথা বলছে। ওদের কথা শেষে মিশু আমার কাছে আসলো। আমি দাড়িয়ে ওদের কথা শুনার চেষ্টা করছিলাম কিন্তু কিছু শুনতেই পেলাম না। মিশু- এই শুনো কিছু কথা ছিলো। - না তোমার সাথে কোনো কথা নাই কতো সুন্দর ভাবে বাসায় ছিলাম তোমার জন্য আমার অবস্থা খারাপ হয়ে গেছে কথা বলবা না আমার সাথে। - আরে ওই কথা বাদ দাও আমি বললাম না? একটা মেয়ের বেবী হবে??? - হুম তো? - ওরা পালিয়ে বিয়ে করেছে তো ওরা একটা ছোট বাসা নিয়ে অন্য এলাকায় থাকে। এখন ওর বউ এর খুব অবস্থা খারাপ অনেক টাকার দরকার কি করা যায় বলো তো?? - আমি কিছু জানি না বললাম না তুমি আমার সাথে কথা বলবা না?? আমি গেলাম। - আরে শুনো একটু হেল্প তো করো। - পারবো না গেলাম। মিশু আমার দিকে তাকায় আসে, আমি চলে আসলাম ওর ওপর রাগ দেখিয়ে কিন্তু অন্য একটা মেয়ের অবস্থা খারাপ তাকে সাহায্য করা উচিত।আমি কারো কষ্ট সয্য করতে পারি না। যেই বন্ধুর সাথে আসছিলাম সেই বন্ধুকে নিয়ে কলেজে আসলাম। - কিরে কলেজে আসলি কেনো এইখানে কি করবো??? - টাকার দরকার আমাদের যতো বন্ধু আসে সবাইকে ডাক এখন। - কি করবি টাকা??? - একজনকে সাহায্য করবো, যলদি ডাক সবাইকে টাইম নাই। সবাই কে ডাকা হলো আমাদের ক্লাসের সবাইকে একসাথে ঘটনা টা খুলে বললাম। আমি জানতাম সবাই সাহায্য করবে। আসলে আমার নিজের ওতো টাকা নেই যে আমি একা সাহায্য করতে পারবো। যথেষ্ট হয়েছে। আবার যাচ্ছি হাসপাতালে, সাথে এবার হাবিব আসে তিনজন মিলে হাসপাতালে গিয়ে ডাক্তারের সাথে কথা বললাম এবং যতো টাকা লাগবে আমাদের টাকা টা সেইখানে দিয়ে চলে আসলাম মিশুকে দেখলাম না ওদেরকে খুজার ইচ্ছাও নাই৷ যা যা করার করে চলে আসলাম হাবিবকে বললাম তুই এইখানে থাক কোনো সমস্যা হলে বলিস আমার ভালো লাগছে না আমি বাসায় যাচ্ছি। রাস্তায় থাকা অবস্থা হাবিরের কল আসলো,যে পিচ্চি একটা পরির মতো মেয়ে হয়েছে আল্লাহকে মনে মনে ধন্যবাদ জানালাম। আমি বাসায় এসে শুয়ে পরছি। হাসপাতালে মিশু সহ সবাই অবাক যে এতো টাকা কে দিলো, কিন্তু তারা অনেক খুশি ছিলো তাই কাওকে কিছু জিজ্ঞেস করেনি। ওইখানে হাবিব থাকায় মিশু ভেবেছে হাবিব টাকা দিয়েছে। মিশু - ধন্যবাদ তোমাকে টাকা দেয়ার জন্য হাসিবকে বললাম একটা বাজে ছেলে, সাহায্য না করেই রাগ দেখিয়ে চলে গেলো। - সাহায্য হাসিব করেছে সাথে আমাদের কলেজের সবাই। হাসিব কলেজে গিয়ে সবার কাছে এই কথা শেয়ার করে সবাইকে সাহায্য করতে বলে আর সবাইকে কিছু কিছু দিয়ে সাহায্য করে ওইটা দিয়েই এই মেয়ের জীবন বাচানো গেছে। - ওহ হাসিব কোথায়? - ওর নাকি খারাপ লাগছে বাসায় চলে গেছে। - আচ্ছা। ( মিশু কি যেনো একটা ভাবছে) - তা তোমার বন্ধু এখন কেমন আছে? - ভালোই চলো দেখে আসি আবার। - হুমম। ওইখান থেকে হাবিব আর মিশু সবাই চলে আসলো তাদের যা যা দরকার সব কিছু দিয়েই চলে আসলো হাবিবের কাছে আরো টাকা দিয়ে গেছিলো হাসিব ওই টাকা ও হাবিব মিশুর বন্ধুর কাছে দিয়ে চলে আসে। এইদিকে হাসিব কোনো হেল্প না করে চলে আসায় মিশু অনেক বাজে ভাবছে হাসিবকে অনেক মনে মনে গালি দিসে। পরে হাসিব সাহায্য করছে শুনে নিজেকে খারাপ মনে করছে। ভাবছে বাসায় গিয়ে হাসিবের সাথে আগে কথা বলবে। ধন্যবাদ জানাবে। খুব জলদি বাসায় চলে আসে মিশু। বাসায় এসেই হাসিবের রুমের দিকে যায় গিয়ে হাসিবকে ডাকে কিন্তু কেও দরজা খুলে না। অনেক্ক্ষণ ডাকাডাকি করার পর মিশু ভাবলো পরে কথা বলে নিবো সারাদিন বাইরে ছিলাম ফ্রেশ হয়ে কিছু রান্না করি। to be continued...................

কোন মন্তব্য নেই

diane555 থেকে নেওয়া থিমের ছবিগুলি. Blogger দ্বারা পরিচালিত.