মাস্তান মেয়ের প্রেমে

Writer: Md Asad Rahman ||Jhenaidah||kotchandpur|| কলেজ জীবনের সকল কিছু ছেড়ে এখন ভার্সিটি লাইফের আজ ১ম দিন। ভার্সিটিতে ঢুকা মাএই দেখলাম কয়েকটা মেয়ে পাশে বসে আড্ডা দিতেছে।আমি তাদের দিকে একবার তাকিয়ে আবার সামনের দিকে তাকিয়ে হাটা শুরু করলাম। হঠাৎ মেয়েগুলোর মাঝে একটা মেয়ে আমাকে দেখিয়ে বলল,,দোস্ত , মালটা জোস না।আমি কিছু না বলে আবার হাটা শুরু করলাম।এরপর হঠাৎ মেয়েগুলো আমাকে ডাক দিল। আমি তাদের কাছে গেলাম।যাওয়া মাএ একটা মেয়ে বলল,,এই ছেলে তোমাকে তো আগে কখনো এ ভার্সিটিতে দেখিনি। আমিঃকেন,, আমাকে দেখার জন্য। বুঝি আপনারা অপেক্ষা করতেছেন,,তাই নাকি?? মেয়েটাঃএই ছেলে তোর তো সাহস কম না।তুই একে তো তুই আমাদের সালাম দিস নাই।তারপর আবার এত বড় বড় কথা বলতেছিস কেন,, হুম?? আমিঃমন থেকে সালাম আসলে হয়ত আপনাকে দিতাম।কিন্তু আপনাদের দেখে আমার তা আসেনি,, তাই দেইনি। তারপর হঠাৎ একটূ মেয়ে আমার দিকে ঘুরে তাকালো।তারপর সে তাদেরকে বলল,, মেয়েঃএই ছেলে কি হইছে তোমার??? আমিঃকই,,আমার তো কিছু হয় নাই।সমস্যা তো মনে হয় আপনাদের হইছে। কারন আপনারাই তো আমাকে ডাকছেন,,তাই না।এবার তাড়াতাড়ি আপনাদের সমস্যা টা বলুন,,আর আমাকে বিদায় দিন। মেয়েঃএই ছেলে তোমার বাবা মা কি তোমাকে কিছু শিখায় নাই।আর শিখাবে বা কি করে,,ছোটলোকের আবার আচার-আচরণ ভালো হয় নাকি। এ কথা বলে সবা হাসাহাসি শুরু করল। আমার জিনিসটা খুব খারাপ লাগল।আমি কিছু না বলে চলে আসতে লাগলাম। তারপর আমি ভার্সিটির ক্লাসগুলো করে চলে আসলাম।১ম দিনেই কিছু বন্ধু জুটে গেল। যা হোক আমার পরিচয়টা দিয়ে নিই,, আমার নাম রাহী। (আমি ইন্টার ১ম ইয়ারে পড়ি)---গল্পের সুবিধার্থে আমি অনার্স ১ম ইয়ারে পড়ি। তারপর ক্লাস শেষ করে বাসায় চলে আসলাম।আবার কাল ভার্সিটির উদ্দেশ্যে রওনা দিলাম।গেইট দিয়ে ঢুকে আবার সেই মেয়েগুলোকে দেখতে পেলাম।তারপর আমাকে ডাক দিল।আমি গেলাম না। হঠাৎ মেয়েগুলো আমার সামনে আসলো। তারপর একটা বলে উঠল,,কিরে মুনিয়া এইতো কালকের সেই ছেলেটা তাই না। মুনিয়াঃহুম।তাই তো মনে হচ্ছে।দেখতে কালকের সেই ছোটলোকটাকে মনে হচ্ছে। আমিঃআপনারা দয়া করে প্লিজ আমার সামনে থেকে সরে যান।আমার আপনাদের সাথে কথা বলতে ইচ্ছে করছে না মুনিয়াঃকেন আমাদের ভালো লাগে না। আমিঃনা। আপনাদের দেখতে আমার একদমই ভালো লাগে না।আপনারা প্লিজ আমার সামনে থেকে যান।আপনাদের আমার দেখতে আমার একদমই ভালো লাগতেছে না।আপনাদের দেখে আমার রাগ কিন্তুু খুব বেড়ে যাচ্ছে।প্লিজ আপনারা যান।না হলে আপনাদের আমি কি করব আমি নিজেই যানি না মুনিয়াঃতুই আমার কি করবি,,দেখি কর। আমি আমার রাগ কন্ট্রোল করতে না পেরে মুনিয়াকে একটা থাপ্পড় দিলাম। তারপর ওইখান থেকে ক্লাসে চলে আসলাম। তারপর আমার এক বন্ধু আমাকে বলল,,দোস্ত এটা তুই কি করলি। আমিঃকেন কি হইছে,, দোস্ত? রাসেলঃদোস্ত তুই তো অনেক বড় একটা অন্যায় করে ফেলছিস। আমিঃ কিসের অন্যায়,,দোস্ত। রাসেলঃতুই এই মুনিয়াকে চিনিস না। আমিঃওরে চিনে আমি কি করব বল। রাসেলঃতুই জানিস না দোস্ত,, ওর ভাই আর ওর ভাই এই এলাকার সবচেয়ে বড় পাচজন বড়লোকের মধ্যে সবচেয়ে বড়। আর ওর ভাই এই এলাকার সবচেয়ে বড় মাফিয়া।এলাকার সবাই ওদের খুব ভয় করে। আমিঃদোস্ত এগুলো তুই আমাকে বলছিস কেন? রাসেলঃনা তুই যে মুনিয়াকে থাপ্পড় মারছিস,, আল্লাহই জানে এখন তোর কি হবে।আমি যাচ্ছি...... আমিঃআরে শোন কোথায় যাচ্ছিস? শোন যারা ভয় পায় তারা হলো ভিতুর ডিম।ভয় পেলে চলবে নাকি।এই যে আমাকে দেখ।আমার মাঝে কোনো ভয় নেই। এই কথা বলে.......

কোন মন্তব্য নেই

diane555 থেকে নেওয়া থিমের ছবিগুলি. Blogger দ্বারা পরিচালিত.