Sponsor

banner image

recent posts

Devil_love 2019

লেখকঃমোঃআসাদ রহমান কোটচাঁদপুর,ঝিনাইদহ নীলাঃ ভাইয়া তুই মনে হয় জানিস না যে মেয়েরা এসব দিক থেকে perfect. 😎😎😎. । কাব্যঃ ও তাইতো🙄🙄🙄,আচ্ছা এখন তাহলে যাই, (বলেই রুম এ চলে আসলাম,রুমে আসার পর বাবার আগমন) । বাবাঃ কী ব্যাপার my son কী কর?? । কাব্যঃ এইতো বাবা একটু বাইরে থেকে এসে একটু অফিস এর কাজ করছি (উঠে বসলাম)কিছু বলবে? । বাবাঃ হ্যা একটু দরকার ছিল(চিন্তার ছাপ নিয়ে) । কাব্যঃ কী হয়েছে বাবা কোন প্রব্লেম?? । বাবাঃ না না তেমন কিছু না,,,আসলে বয়স হচ্ছে আর প্রতিটি বাবা মা তো চাই যে তার সন্তানদের নাতি নাত্নির মুখ দেখে যাক।(একটু মন খারাপ করে) । কাব্যঃ হঠাৎ এই কথা?? । বাবাঃ জানিস আজ অফিস থেকে ফেরার পথে দেখলাম একজন লোক তার ছেলের সন্তানদের নিয়ে রাস্তার পাশ নিয়ে আইস্ক্রিম খেতে খেতে যাচ্ছে,,,আমাদের বুঝি এসব ইচ্ছে করে না(মাথা নিচু করে) । কাব্যঃ হ্যা ইচ্ছে করতেই পারে তো কী হয়েছে। । বাবাঃ কী হয়েছে মানে এটা বুঝো না যে তোমার বয়স কোথাই যাচ্ছে,, আর এখন যদি বিয়ে না করো তাহলে কখন করবে?,আর এখন বিয়ে না করলে আমরা নাতি-নাতনির মুখ কিভাবে দেখব,,মরার পর বিয়ে করবে নাকি(রেগে গিয়ে) । কাব্যঃ বাবা তুমি যান আমি এখন এসব এর প্রতি avid না,আর তোমাদের কী এখনও বয়স হয়েছে যে নাতি নাতনিদের মুখ দেখবে,,এখনও তো yang body fetness ache.... । বাবাঃ তুই কী বুঝবিরে বাবা শরীর মজবুত দেখালেও রক্তের জোর ধীরে ধীরে কমছে। । কাব্যঃ আচ্ছা বাবা তোমার ইচ্ছা তোমারা যা ভালো বোঝ তাই করো। । বাবাঃ সত্যি (আনন্দের হাসি দিয়ে) । কাব্যঃ হ্যা সত্যি(আসলেই বাবার হাসিটাই যেন জাদু আছে দেখলেই মন ভরে যাই) । মাঃ বাপ-বেটা এত কিসের আলোচনা শুনি??(রুম এ এসে) । বাবাঃ জানো গিন্নি তোমার ছেলে বড় হয়ে গিয়েছে সে বিয়ের জন্য রাজি হয়েছে, । মাঃ তাই তাহলে শেষে তোমার কথাই শুনল । কাব্যঃ মানে এসব তোমরা করেছ? । বাবাঃ না তবে চেষ্টা করেছি(বলি দুজনে হাসতে লাগল, আমি আবার কী বলব পরিবার jab happy hey to hum kiya kare?? 😚😚 । নীলাঃ(পাশের রুম থেকে হাসাহাসি শুনে এসে দেখি এরা আমাকে রেখেই হাসছে) তা এই হতভাগা মেয়েটির কথাকি সব ভুলে গেছ নাকি(অভিমান করে) । মাঃ ইসস আমার মেয়েটির ও কী বিয়ে করার শখ হয়েছে নাকি??(আহ্লাদি করে) । নীলাঃ মানে?(বিস্মিত ভাবে) । মাঃ মানে তোমার ভাইয়ার জন্য এখন মেয়ে দেখতে যেতে হবে। । নীলাঃ তাই তাহলে তো এখন একটা ভাবি পাচ্ছি । কাব্যঃ একটা মানে আরও কয়টা লাগবে নাকি?? । নীলাঃ ooops (মুখে হাত দিয়ে) না না সেটা বলি নি বলছি ছেলেদের তো আবার এরকম একটা রোগ আছে একটা রেখে আরেকটা (গালে হাত দিয়ে) । বাবাঃ যাই বলো আমি কিন্ত তোমার মাকে ছাড়া কারোর দিকে তাকাই নি,এমন কী ওই পাশের বাড়ির আন্টির দিকেও না(দৌড় দেওয়ার পালা এবার) । মাঃ কী তারমানে তুমি(কোমরে হাত দিয়ে,রেগে গিয়ে) । বাবাঃ আমি কিন্ত কিছু করিনি বলেই দৌড়। ,,,,সবাই হাসিতে ভরপুর,,এভাবেই চলুক পরিবার।,,,,,,, তানিশাঃ উফফঃ বাবা কী ঘুমটাই না দিলাম(ঘুম থেকে উঠে),আজ কার মুখ দেখে উঠেছিলাম 🤔🤔🤔কী ব্যাপার মনে পড়ছে না কেন? যাইহোক আমি চাই প্রতিদিন তার মুখ দেখেই উঠব😏😏😏 তাহলে প্রতিদিন এরকম ঘুমোতে পারব।(উঠে ফ্রেস হয়ে দেখি সন্ধ্যা হয়ে গিয়েছে, নিচে গেলাম যেয়ে দেখি সুমি+আব্বু দুজনেই মিলে গেম খেলছে, বাবাঃ কী ব্যাপার আমার মেয়ের ঘুম তাহলে ভাঙল?? । তানিশাঃ হুম । সুমিঃ আর আমি তোমার কে? যে তুমি অকে আমার মেয়ে বললে😂😂😂 । বাবাঃ তুমিও আমার মেয়ে। । তানিশাঃ ওই তোর কীরে তাতে?(তেজ দেখিয়ে) । সুমিঃ আমার কী মানে এটা আমার বাবা আর আমার থাকবে আর কারোর না । তানিশাঃ ইসস শখ কত আইছে বাবার ভাগ নিতে। আমি আগে এসেছি তাই আমি আগেই নিয়ে নিয়েছি বাবাকে তু ফুট ইহাছে😎😎😎😎 । সুমিঃ কোন দিন ও না,,তুই দেখতেই পাচ্ছিস আমার বাবা তাই আমি বাবার সাথে বসে খেলা করছি। । তানিশাঃ হু আইছে শাকচুন্নি, মুখপুড়ি কোথাকার(ভেংচি দিয়ে) । মাঃ আচ্ছা বাবাকে সবাই নিয়ে নিছ তাহলে মাকে কে নিবে? । তানিশাঃ কেন? আমি😚 । সুমিঃ না আমি(জোরে চেচিয়ে) তুই সবাইকে নিবি তাহলে আমি কি নেব । তানিশাঃ তুই বান্দরের লেজ এর সাথে ঝুলে থাককা। । সুমিঃ বাবা তোমার মেয়ে কিন্ত বেশি করে ফেলছে । বাবাঃ আহঃ থামবি তোরা,, এই যাও তো খেতে দাও, অফিস এর কাজ আছে অনেক। । মাঃ আচ্ছা। । তানিশাঃ (তারপর খাওয়া-দাওয়া করে রুম এ এসে একটু বই দেখে ঘুমাতে যাব কিন্ত ঘুম আসছে না😏) এটা কী হলো ঘুম আসছে না কেন😏,না আসুক তাতে আমার কী আরো ভালো হলো মন খুলে এখন কাব্যর গল্প গুলো পরব 😚😚😚😚আহ কাব্য তোমাকে যে কবে পাব😣তোমার ইনবক্সে মনে হয় ১০০০০ এসএমএস দিয়েছি কোন রিপ্লে দাও না কেন? devil কোথাকার মনে কোন দয়া মায়া নেই/😥😥😥😥গল্প পড়তে পড়তেই ঘুমিয়ে পড়েছি। । । নীলাঃ আচ্ছা মা তোমার এই রান্না তুমি কিভাবে তৈরি করো বলতে পার, এটা আমার জীবনের সবচেয়ে বেস্ট রান্না,এরকম ভাবে কেউ রান্না করতে পারবে না। । মাঃ কেনো এর আবার নতুন কী এটা তো আমি প্রতিদিনই করি । নীলাঃ হ্যা তবে এটার স্বাদ কোনদিন পুরনো হবে না😋😋 । মাঃ পাগলী একটা । নীলাঃ হুম তোমাদের পাগলী 😘😘😘 । কাব্যঃ already madwoman হলে পাবনাই দিয়ে আসব। । নীলাঃ ভাইয়া । বাবাঃ এত কথা কিসের,নীলা একে পরে দেখা যাবে আগে মেয়ে দেখ😮 । কাব্যঃ তারমানে তোমরা মেয়ে পেয়ে গেলে আমাকে ভুলে যাবে😮 । মাঃ না না আমার বেটাকে কী আর ভুলে থাকা যাই । কাব্যঃ anyway my mothar all time my withs,,,i love you ma.. । বাবাঃ আর আমরা । কাব্যঃ তোমরা তো আমাকে ভুলেই যাবে😏 । বাবাঃ সেটাকি আমি বলেছি🙂 । কাব্যঃ না তবে আমার বাবা কিন্ত মুখে যাই বলে মনে কিন্ত সবদিক থেকে ভালো । বাবাঃ thank you my boy । কাব্যঃ welcome ( কাব্য dinner শেষে রুম এ এসে অফিস এর কাজ সেরে ঘুমাতে গেল আসলে অফিস এর সকল কাজ বাসাই করে) মোঃআসাদ রহমান "কোটচাঁদপুর"ঝিনাইদহ"
Devil_love 2019 <mark>Devil_love 2019 </mark> Reviewed by শেষ গল্পের সেই ছেলেটি on আগস্ট ০৯, ২০১৯ Rating: 5

কোন মন্তব্য নেই:

Blogger দ্বারা পরিচালিত.