ধোকাবাজ

বাইক নিয়ে ছুটে চলেছে আবির অন্যদিকে রওনা দিয়েছে তিশা। একটু পরেই আবির তিশার দেখা হলো। :> অবশেষে আমাদের বিয়েটা হচ্ছে আবির!! >: তার আগে আমার কিছু শর্ত আছে, সেগুলো মানতে হবে। :> বলো আবির কি শর্ত? আমি তোমার সকল শর্তে রাজি আছি। >: বিয়ের পরেই ভিডিওটা আমার সামনেই ডিলিট করে দিতে হবে। :> ok done. আমি শুধু তোমাকে চাই আবির আর কিচ্ছু চাইনা। >: তাহলে চলো.... :> কোথায় যাবে আবির? >: কি যে বলো তুমি!!! আমরা নাহ বিয়ে করব তাহলে কে বিয়ে পড়াবে আমাদের? :> ওহহ সরি চলো কাজী অফিসে। >: কিন্তু বিয়ের ব্যাপারটা আপাতত গোপন থাকা চাই তিশা। :> বললাম তো তুমি যা বলবে তাতেই আমি রাজি। ......................... কাজী অফিসে বিয়ের কাজ শেষে দুজন বেরিয়ে আসে। এখন আবির আর তিশা দুজনে বাইকে করে ঘুরে বেড়াচ্ছে। :> বিয়ে তো করলাম আবির এখন আমরা কোথায় যাচ্ছি?? >: কেনো তোমার শ্বশুর বাড়ি। :> সত্যি?? তুমি আগের থেকে সব কিছু বলে রেখেছো বাসায়? >: আরে ধুরো পাগলি আব্বু আম্মু মামা বাড়ি বেড়াতে গেছে এই সুযোগে তোমার শ্বশুর বাড়ি ঘুরিয়ে নিয়ে আসি। :> এইই তোমার মনের ভাবটা কি বলো তো!! আমার কিন্তু মোটেও ভাল ঠেকছে নাহ। >: বারে আমার বউকে নিয়ে আমি যা খুশি করতে পারি এখানে ভালো না ঠেকার কি আছে!! :> নাহ নাহ কোন দুষ্টামি চলবে না। >: চুপচাপ বসে থাকো তো এত কথা বলো কেনো?? :> কি ব্যাপার স্যারের মাথা গরম কেনো হুমম। >>>> আবির কোন কথার জবাব না দিয়ে সোজা বাইক নিয়ে বাসায় চলে এলো। পুরো বাড়ি ফাঁকা শুধু আবির আর তিশা। এইবার তিশাকে নিয়ে সোজা আবিরের রুমে চলে যায় আবির। রুমের দরজা টা বন্ধ করে আবির তিশার মোবাইলটা চাই। তিশাও কোন প্রশ্ন না করে মোবাইলটা দিয়ে দেয়। <<< হয়ত এটাই ছিলো তিশার বড় ভুল। ভাবছেন এখানে ভুল কি ছিলো?? আরে ভাই ভুল তো আছে, তাহলে ভুলটা কি দেখা যাক। >> আবির মোবাইলটা হাতে নিয়ে আগে সেই ভিডিওটা ডিলিট করে দেয়। কিন্তু মোবাইলটা আবিরের কাছেই রাখে। এইবার আবির তিশাকে জড়িয়ে কিসস করতে থাকে এক পর্যায়ে ব্যাপারটা অন্যদিকে গড়ালে তিশা বাধা দেয়। এতে আবির রেগে যায়। আবিরের কথা তার বিয়ে করা বউ কেনো তার কাজে বাঁধা দেবে!! তিশা আর কিছু বলতে পারেনা কারন আবিরের কথাটা ঠিক কেননা সে তো এখন আবিরের বউ। এইবার আবির তাঁর শয়তানি বুদ্ধিটা কাজে লাগায়। তাদের অন্তরঙ্গ ভিডিওটা তিশার মোবাইলেই ধারন করতে থাকে। তিশা আবিরকে ক্যামেরাটা বন্ধ করতে বললেও আবির বলে আমার বউ এর সম্মান কি বাহিরে দেখাবো নাকি। পরে তিশা আর এসব নিষেধ করার মত সেন্স এ না থাকায় আবির নিজের ইচ্ছা মত তিশার ভিডিও ধারন করতে থাকে। এইবার এই ভিডিওতে আবিরের চেহারার কোন ছাপ নাই। পরিশেষে তিশা ওয়াস রুমে গেলে আবির ভিডিওটা তার মোবাইলে নিয়ে নেয় আর তিশার মেবাইল থেকে ভিডিওটা ডিলিট করে দেয়। তারপর তিশা ফ্রেস হয়ে এলে আবির তিশাকে নিয়ে আবার বেরিয়ে পড়ে। সারাদিন অনেক ফুর্তি করে কাটায় দুজনে। দিন শেষে আবির তিশাকে বাসার সামনে ছেড়ে দিয়ে আসে। ওহহহ তিশার সমন্ধে তো কিছু বলাই হয়নি চলুন কিছু জেনে নেওয়া যাক। ..... তিশা আবিরের এক বছর সিনিয়র, অনেক কিউট একটা মেয়ে বলা চলে কিউটের ডিব্বা। কিন্তু আবিরকে দেখে নিজের কিউটনেসটা ভুলে যায় তিশা। আবিরের জন্য পাগল হয়ে পড়ে। তাই আবিরকে আপন করে পেতে নিজ ইচ্ছায় মোবাইলে তাদের অন্তরঙ্গ ভিডিওটা ধারন করেছিলো আর যার কারনে আজ আবির তিশার মিলন হলো। কিন্তু এ মিলন বা বিয়ে তিশার জীবনে কতটুকু সুখের পরশ নিয়ে আসবে সেটা দেখার বাকি। <<>> কাহিনির নতুন টুইস্ট জারা সে তো আবিরের পিছু ছাড়েনা। আবির অনেক ভেবে জারার সাথে রিলেশানে জড়ায় কিন্তু এ রিলেশান নাকি অভিনয় সে তো সময় বলে দেবে। ,,,, কলেজের সবার মুখে মুখে তিশাকে নিয়ে আলোচনা। কিন্তু কি এমন আলোচনা!! কিছুদিন আগে ইন্টারনেটে একটা ভিডিও ভাইরাল হয় আর সেই ভিডিওটা এখন সবার হাতে হাতে। সেই ভিডিওটা কি সেটা বুঝে গেছেন নিশ্চয়। ..... তিশার কলেজ আশা বন্ধ, বাহিরে লজ্জায় বে হতেও পারেনা। আর সারাক্ষন মা বাবার অপমান আর মেনে নিতে পারেনা তিশা। তিশা বুঝতে পারে কি ছিলো তার ভুল। কারোর ভালবাসা পাওয়ার জন্য জোর করতে নেই এতে নিজের ই ক্ষতি। আজ তিশা সেটা ধাপে ধাপে বুঝে গেলো। এই লজ্জা নিয়ে বেঁচে থাকার মত শক্তি তিশার নেই তাই মা-বাবা, বন্ধু-স্বজন সবাইকে ছেড়ে চলে গেলো তিশা। তিশা দুনিয়া থেকে বিদায় নিলো কিন্তু আবির নামের নরপিশাস এখনো দুনিয়াতেই রয়ে গেলো কিন্তু খুব বেশিদিন হয়ত আবিরও থাকবেনা। আবিরের শেষ পরিনতি দেখার জন্য গল্পের শেষ পর্যন্ত পাশে থাকুন। .. তিশার মৃত্যু নিয়ে কিছু কথা বলতে চায়,,, তিশার মত অনেক মেয়ে আমাদের সমাজে ভাইরাল হচ্ছে প্রতিনিয়ত। কিন্তু কেনো?? এখানে ভুলটা তিশারই ছিলো সে কেনো সেই মুহূর্ত টা মোবাইলে ধারন করতে দিলো?? তার মৃত্যুর জন্য সে নিজে দায়ী নয়, হয়ত তিশা বেঁচে থাকতো কিন্তু এই সমাজ, সমাজের মানুষ তিশাকে বাঁচতে দিলোনা। চাইনা কোন তিশা আর এভাবে ভাইরাল হোক তাই সতর্ক থাকুন। >>>> গল্পটি এখনো শেষ হয়নি বাকিটা আবার আগামিকাল ততক্ষন ভালো থাকবেন আল্লাহ হাফেজ। to be continue.....

Berlangganan via Email