ভাবি যখন বউ

একটি ভুল প্রতিশোধ (part 3) রাবেয়া ওদেরকে বলো নিচে গাড়ি দাড়িয়ে আছে ওরা যেন আজকেই এই বাড়ি এই শহর ছেড়ে চলে যায়।আর তোমার ছেলেকে বলবে জীবনে বেচে থাকতে যেন ভুল করেও এবাড়ির দিকে পা না বাড়ায়।আজ থেকে ও আমাদের জন্যে মরে গেছে।আর ওকে এটাও বলে দাও।ওর ভাগের সব কিছু ওকে লিখে দেওয়া হয়েছে যাতে ভবিষ্যতে যেন সম্পত্তির ভাগের জন্যে এই বাড়িতে না আসে (আব্বু) আম্মু আব্বু এসব কি বলছে।আমি তোমাদের ছেড়ে কোথায় যাব।(সোহান) চুপ একদম চুপ বের হয়ে যা এখান থেকে।আর একটা কথা তুই যেহেতু এই মেয়েটার জীবন শেষ করে দিয়েছিস।তখন তোকেই ওর জীবনটা আবার সাজিয়ে দিবি।যদি কোন দিন শুনি তোর কারনে এমেয়েটার কোন খতি হয়েছে তবে মনে রাখবি তোর কাছে আমরা সে দিন থেকে মৃত।(আম্মু) আআম্মু(সোহান) রিয়া ওকে বের হয়ে যেতে বল।ও যদি বের না হয় তাহলে ওকে আমার মরা মুখ দেখতে হবে।(আম্মু) আম্মুর কথা শুনে বুকটা কেপে উঠল।আমি মাথা নিচু করে বাড়ি থেকে বের হয়ে আসি।আসার সময় স্নেহার দিকে তাকাতেই দেখি ওর চোখ দিয়ে পানি পড়লেও।ওর ঠোটের ফাকে একটা হাসি ফুটে উঠল।যাইহোক তারপর আমি গাড়িতে উঠে পড়ি।স্নেহাও আমার পিছন পিছন এসে গাড়িতে উঠে।তারপর ও ড্রাইভার কে কি যেন বলল।আর ড্রাইভার গাড়ি চালানো শুরু করল।কিন্তু আমার সেদিকে খেয়াল নেই।আমি বাড়ির দিকে একনজরে তাকিয়ে আছি।বাড়ির দিকে তাকিয়ে থাকতে থাকতে ভাবতে লাগলাম পুরানো কথা গুলো।ভাইয়া আর স্নেহা ভাবি এক সাথেই ডাক্তারি পড়ত।তাদের মধ্যে অনেক ভালো বন্ধুত্ব ছিল।কিন্তু কেউ কাউকে ভালোবাসত না।ভাইয়া যে হাসপাতালে কাজ করত সেখানকার এক নার্সকে পছন্দ করত।কিন্তু বড় আব্বার তাকে পছন্দ করত না।যেহেতু স্নেহা ভাইয়ার সাথে পড়ত।সেই সুত্রে ১মাস আগে আমাদের বাড়িতে বেড়াতে আসে।আর বড় আব্বার তাকে পছন্দ হয়।তারপর স্নেহা আপুর বাবা মায়ের সাথে কথা বলে বলে বিয়ে ঠিক করে।তারপর কি হলো আপনারাতো দেখতেই পেলেন।(সোহান) এই কি হলো কি এত ভাবছ নেমে পড়।আমরা এসে পড়েছি।(স্নেহা) আমি কিছু না বলে স্নেহার পিছু পিছু একটা বাড়িতে ঢুকে যাই।আর সোফায় বসে পড়ি।স্নেহা ব্যাগ থেকে কাপর বের করে বাথরুমে যায়।বাথরুম থেকে বের হয়ে যা বললো তাতে আমি চমকে উঠি।কারন স্নেহা বললো যে... এই কুত্তার বাচ্চা এখানে বসে তুই কি করছিস।যা ফ্রেস হয়ে আয়।(স্নেহা) ভাবি তুমি আমাকে খারাপ কথা বলে গালি দিচ্ছ কেন।(সোহান) তুই এমন কোন মহান ব্যাক্তিরে যে তোকে সম্মান করতে হবে।একটা কথা মনে রাখ আজ থেকে তোর জীবনটা আমি জাহান্নাম করে দিব।এখন এই কাগজে সই করে দে।(স্নেহা চোখ মুখ লাল করে বললো) কিসের কাগজ এটা।(সোহান) তোর আর আমার বিয়ের কাগজ।এখন চুপ চাপ সই কর।(স্নেহা) কিহ বিয়ের কাগজ মানে।আমি আপনাকে বিয়ে করতে পারব না।(সোহান) কি বললি বিয়ে করতে পারবি না।(স্নেহা) না পারব না।(সোহান) ভালোয় ভালোয় সই কর বলছি।না হলে আমি করব তা তুই ভাবতেও পারছিস না।(স্নেহা) আপনার যা খূশি তা করুন।আমার কিছু যায় আসে না।আপনি আমার যা ক্ষতি করার তা করেছেন।(সোহান) এখনো কিছুই করি নাই।তবে এবার করব।তুই যদি সাইন না করিস।তাহলে আমি এখান থেকে সোজা থানায় যাব।আর এটা বলব যে তুই আমাকে রেফ করেছিস।আমাকে রেফ করতে তোর মা বাবা তোকে সাহায্য করেছে।এখন ফেবে দেখ আমাকে রেফ করার দায়ে তোকে তো জেল খাটতেই হবে।সেই সাথে তোর মা বাবাকেও পুলিশ কোমরে দড়ি বেধে নিয়ে যাবে।আচ্ছা তোর কি ভালো লাগবে এটা দেখতে।(স্নেহা) প্লিজ আপনি এমনটা করবেন না।আপনি যা বলবেন আমি তাই করব।বলুন আমাকে কোথায় সাইন করতে হবে।(সোহান) এই নে এখানে এখানে সাইন কর।(স্নেহা) তারপর আমি পেপার গুলো না দেখেই বা পড়েই সাইন করে দেই।আমার সাইন করা দেখে অধরার ঠোটে হাসি ফুটে ওঠে।আমি সাইন করে বাথরুমে যাই গোসল করতে।কারন সকালে গোসল করা হয় নাই।গোসল করে বাহিরে বের হতেই স্নেহা বললো যে... এই কুত্তার বাচ্চা যা বাজার থেকে চাল ডাল শাক সবজি ইত্যাদি কিনে নিয়ে আয়।তারপর আমার জন্যে খাবার তৈরি করবি।আমার খুব খুদা লেগেছে।(স্নেহা) ভদ্র ভাবে কথা বলুন।আর আমি করব রান্না অসমভব।আমি আপনার কেনা গোলাম নই যে আপনার সব কথা শুনব।(সোহান) ঠিক আছে আমার কথা শুনতে হবে না।শুধু কষ্ট করে এই ভিডিওটা দেখ।বলে আমার দিকে ওর মোবাইলটা আমার দিকে এগিয়ে দেয়(স্নেহা) আমি স্নেহার হাত থেকে ওর মোবাইলটা হাতে নিয়ে যেই মোবাইলের দিকে তাকিয়েছি।তখন আমার দুনিয়াটা যেন থমকে গেছে।একি দেখছি আমি আমার বোন গোসল করার ভিডিও।এটা যদি কোন ভাবে লিক হয়।তাহলে আমার বোনটার জীবনটাই শেস হয়ে যাবে।(সোহান) এখন ভেবে দেখ আমার কথা শুনবি কি না।যদি না শুনতে না চাস তো আমি আমার মোবাইলে একটা ক্লিক করব।আর তোর বোনের এই পাচ মিনিটের ভিডিও ভাইরাল হবে।আর...(স্নেহা) আমি আপনার পায়ে পড়ি।দয়া করে আমার বোনের সাথে এমন টা করবেন না।(সোহান) ঠিক আছে করব না।তবে মনে রাখ আজ থেকে তোকে আমার সব কথা শুনতে হবে।যদি কোন রকমের চালাকি করার চেষ্টা করেছিস তো বুঝতেই পারছিস আমি কি করতে পারি।(স্নেহা) আমি কিছু না বলে যেই বের হতে যাব।তখনি স্নেহা পিছন থেকে বললো যে... (to be continued)

কোনো মন্তব্য নেই for " ভাবি যখন বউ "

Berlangganan via Email