Sponsor

banner image

recent posts

গল্প হলেও সত্যি

[ দয়া করে পড়েন বাস্তব একটা কথা জানতে পারবেন ] আবির আর আদি দুই ভাই।দেখলে মনে হয় রাজপুএ।ওরা যেন দুই ভাই না একই মুদ্রার এপিঠ ওপিঠ। কখনো একজন আরেক জনকে ছাড়া কিছু খায় না।আবির বড় আর আদি ছোট।আবির সবাই সময়ই আদিকে সটিক পরামর্শ দান করে। তবে আদিও কম ব্রিলিয়ান্ট নয়। সেও নিজের টা খুব ভাল চিনে।শার্ট প্যান্ট থেকে শুরু করে প্রতি ক্ষেত্রেই একে অন্যের উপর নির্ভরশীল। কখনো মতের অমিল হয়নি আর যাও একটু আধটু হয় সেটা ওরা মিটিয়ে নেয়।বিপওি হলো তখন যখন আবিরের বিয়ের কথা চলে।মেয়ের পক্ষের লোকজন আবিরকে দেখে খুব পছন্দ হলো।সুতরাং এবার মেয়ে দেখার পালা।ঘটকের ভাষ্যমতে মেয়ের পরিবার ভাল।তবে আবিরের তুলনায় মেয়েটা একটু বেমানান তবে এটা চলবে।তাই একটা দিন ঠিক করা হয়।পরিবার থেকে আবিরকে বলা হয় আমি নিজে মেয়েকে দেখতে।আবির সব ক্ষেত্রেই ছোট ভাই আদির পছন্দ টাই দেখে। তাই এক্ষেত্রেও সে পরিবারে জানায় যে তোমাদের পছন্দই আমার পছন্দ আর আদির যদি মেয়েকে পছন্দ হয় তবে আমার হবে।যথারীতি সবাই মেয়ে দেখে বিয়ের দিন ধার্য করেন। আবিরের মাথায় আকাশ ভেঙে পড়ে তখন যখন ছোট ভাইর পছন্দ করা মেয়ে বউকে দেখে।আগেই কানে আসছিল মেয়েকে যারা দেখতে গিয়েছিল তাদের অনেকেরই পছন্দ হয় নিয়ে।তবে আদির নাকি খুব পছন্দ হয়েছে। কারনটা বলছি একটু পরে।আগে বউর বর্ণনা দেই।নতুন বউকে দেখলে মনে হয় মটকি (চালের ড্রাম)এ-র মতো। আবিরকে গলা টিপে মারতে তার বাম হাতই যথেষ্ট। বুঝাইতে পারছি কি না জানি নাম।তবে আবির বিয়ের আগে ওরে দেখলে সরাসরি না করে দিত।যে ভাইর পছন্দের এতটা মূল্য আবিরের কাছে সেই আূদি কেন এমন করল।কারনটা হলো আদি যখন পাএি দেখতে যায়।তখন পাএির ছোট বোনকে দেখে তার লোভ লেগে যায়।তাই সে তার লোভকে সম্মান দিতে বড় ভাইর জন্য এমন ইতিহাস রচনা করল। বি.দ্র.কোন বড় ভাই এরকম কাজ ভুলেও করবেন না। নাহলে আবিরের মতো ইতিহাস হবে। ইতি কাচা হাতের লেখক।
গল্প হলেও সত্যি গল্প হলেও সত্যি Reviewed by শেষ গল্পের সেই ছেলেটি on আগস্ট ০৪, ২০১৯ Rating: 5

কোন মন্তব্য নেই:

Blogger দ্বারা পরিচালিত.