Sponsor

banner image

recent posts

বেঁচে আছি সপ্ন নিয়ে

< Session 2 > ** ৭ম পর্ব ** লেখাঃ(Asad Rahman) - রাতে , - হ্যালো (হৃদয়) - হ্যালো (ইমতি) - হুম বলো (হৃদয়) - হঠাৎ বৃষ্টি লাইনে আসছে , কথা বলবা (ইমতি) - তাই নাকি (হৃদয়) - তোমার তো নাকি কথা বলার সখ তাই কল দিলাম তোমাকে ws(ইমতি) - কল দিয়েছো , নাকি ভিডিও কল , (হৃদয়) - ওই একই , তা রুমে তুমি একা , তোমার সো কলড বউ কই , দেখি ক্যামেরা টা ঘুরাও (ইমতি) - আহ ইমতি ট্রাষ্ট করো না আমায় , তাই না , (হৃদয়) - আমি বলছি ঘুরাইতে (ইমতি) - এই নাও দেখো আমার রুমে আমি একা , আর ডোর লক করা , (হৃদয়) - হুম ঠিক আছে , আচ্ছা শুনো হঠাৎ বৃষ্টি কে নক দিতে পারো , আমি তোমার কথা বলেছি কিচ্ছুক্ষণ আগে তাকে , সে বলছে সে কথা বলবে , আর তাছাড়া তুমিও তো জানো তার লিখা আমারও খুব ভালো লাগে , আমার লিখার ইন্সপিরেশন সে , সুন্দর করে কথা বলবা আর হ্যা , বেশি মাখামাখি করবা না (ইমতি) - আচ্ছা বাবা আচ্ছা , (হৃদয়) - অনলাইনে এসে হঠাৎ বৃষ্টি আইডি তে যায় হৃদয়। কিন্তু একি এই আইডির সাথে তো সে এড নাই । তবুও নক দেয় , - হ্যালো (হৃদয়) - কেটে যায় ২০ মিনিট , নো রিপ্লাই , বিরক্ত হয়ে যেইনা অফলাইনে যাবে ওমনি টুং করে ম্যাসেজ আসে। - আসসালামু আলাইকুম জ্বি বলুন (হঠাৎ বৃষ্টি) - কেমন আছেন ? (হৃদয়) - আলহামদুলিল্লাহ ভালো চিনলাম না ঠিক , কে বলছেন (হঠাৎ বৃষ্টি) - আপনার একজন অন্ধ ভক্ত (হৃদয়) - আমি তো কোন সেলিব্রেটি নই যে আমার ভক্ত থাকবে (হঠাৎ বৃষ্টি) - কি বলছেন এইসব , আপনার গল্প গুলোর জন্য আপনি অনলাইনের সেলিব্রেটি , (হৃদয়) - আমি তো জানি না (হঠাৎ বৃষ্টি) - কি বলেন , আপনি কি জানেন আপনার লিখা কতো সুন্দর , এক একটা পর্বে 4 k /7 k লাইক আসে (হৃদয়) - জানতাম না , এখন আপনি বলাতে জানতে পারলাম (হঠাৎ বৃষ্টি) - বেশ মজা করে কথা বলেন তো আপনি (হৃদয়) - ওহ তাও আজকে জানলাম (হঠাৎ বৃষ্টি) - মানে (হৃদয়) - ইমতি চৌধুরীর বি এফ আপনি ? (হঠাৎ বৃষ্টি) - হ্যা আপনি জানলেন কিভাবে , (হৃদয়) - ইমতিই বলেছে , অনেক বড় লোক বাবার একমাত্র ছেলে , চৌধুরী গ্রুপ অফ ইন্ডাস্ট্রি র একমাত্র উত্তরসূরি মিষ্টার হৃদয় চৌধুরী , রাইট (হঠাৎ বৃষ্টি) - আপনি তো দেখছি সব জানেন (হৃদয়) - ইমতি বলছে (হঠাৎ বৃষ্টি) - আপনার লেখার ভক্ত আমি , আপনার ভূবন বিলাসী গল্প টা যাষ্ট ওয়াও । অনেকদিন আগের থেকে কথা বলতে চেয়েছিলাম , কিন্তু আপনি তো ধরা ছোয়ার বাহিরে (হৃদয়) - ধন্যবাদ , এতো ব্যস্ততার মাঝেও আমার গল্প পড়ার জন্যে , আর আমি খুব সাধারন একজন মানুষ , আমি মাটিতেই বিচরণ করি , তাই এইসব বলবেন না দয়া করে (হঠাৎ বৃষ্টি) - আচ্ছা আমি সরি (হৃদয়) - রাখছি ভালো থাকবেন (হঠাৎ বৃষ্টি) - { লিখা গুলো সব টাইপিং ছিলো } - কিছু বলার আগেই অফলাইনে চলে যায় আইডি টা । রহস্যে ঘেরা আছে আইডি টায়।এতো এতো লাইক কমেন্ট , অথচ সে বলে সে জানতই না । এইগুলা কি ? কিছুই মাথায় আসতেছে না । তবে লিখা গুলো খুব সুন্দর (হৃদয়) - বিষন্নতায় কেটে যায় নীলার দুইটা দিন , - একদিন সকালে , - আপনি কি বাহিরে যাচ্ছেন (নীলা) - হুম কেন (হৃদয়) - আমিও একটু বাহিরে যেতাম , যেতে পারি আপনার সাথে (নীলা) - আচ্ছা , চলো (হৃদয়) - একটু অপেক্ষা করেন পার্স টা নিয়ে আসি (নীলা) - গাড়িতে , - তা কি সিদ্ধান্ত নিলেন (নীলা) - কিসের (হৃদয়) - ইমতি আর কতদিন অপেক্ষা করবে (নীলা) - মানে (হৃদয়) - আপনাদের তো বিয়ে হওয়ার কথা ছিলো , তাই না (নীলা) - কে বললো (হৃদয়) - শুনেছিলাম (নীলা) - হলো আর কই তার আগেই তো (হৃদয়) - তার আগেই আমি তীর্থের কাক হয়ে আপনাদের মাঝে চলে আসছি , তাই তো (নীলা) - ......................(হৃদয়) - এক কাজ করেন (নীলা) - কি (হৃদয়) - বিয়ে করে নেন ইমতি কে (নীলা) - সাথে সাথে গাড়ি ব্রেক করে , - আউচচচ (নীলা) - এইখানে নামবে তো , তাই না (হৃদয়) - হুম (নীলা) - এসে গেছি (হৃদয়) - ওহ , আচ্ছা আসি (নীলা) - গাড়ি স্টার্ট দিয়ে আবার চলে গেলো , একবার জিজ্ঞাসাও করলো না যে কেনো এইখানে আসলাম বা কিছু । যা বলি আর তাই বলি আমার বর টা কিন্তু মাশা-আল্লাহ , চাঁদের টুকরো , অনেক হ্যান্ডসাম এই জন্যেই লাইন চলে ঘরের বউকে ভালো লাগে না তার । - কাজ শেষ করে বাসায় চলে যাই , কিন্তু একি ডোর তো লক করে গেছিলাম , তাহলে খুললো কে ? এমা ডাকাত ডুকে নি তো । কিন্তু ঢুকবে কিভাবে । নিচে তো দাড়োয়ান দাড়ানোই আছে । অনেক সাহস করে কলিংবেল দিলাম । দরজা খোলার পরে যা দেখলাম আমার পায়ের নিচের মাটি সরে যায় । - তুমি (নীলা) - হুম আমি , কেনো (ইমতি) - নাহ এমনি (নীলা) - আ......আ......আ..... কই যাও (ইমতি) - বাসায় ঢুকবো না ? (নীলা) - নাহ (ইমতি) - কেনো ? (নীলা) - এইটা আমার আর হৃদয়ের বাসা । হৃদয় এখন নেই তাই এখন আমি থাকবো (ইমতি) - তো আমি বাসায় ঢুকবো না (নীলা) - নাহ (ইমতি) - কিছু বলার সুযোগ না দিয়ে মেয়েটা দরজা টা অফ করে দিলো , উফফফফ কি আপদ রে বাবা , একে তো বাহিরে এতো রোদ আমি কোথায় যাবো এখন । কেমন ডা লাগে এখন ? অসহায়ের মতো আবার দরজায় নক দিলাম । - কি হয়েছে কি (ইমতি) - এখন মাত্র ১২ টা বাজে ইমতি , আমি এখন কোথায় যাবো বলো তো , আমায় বাসায় ঢুকতে দাও , আমি রুমে গিয়ে দরজা লক করে রাখবো , তুমি পুরা বাসায় একা থাইকো, আমায় ঢুকতে দাও (নীলা) - খবর দার না , তুমি জাহান্নামে যাও , আই ডোন্ট কেয়ার , ওকে । তবুও এইখানে এই মুহুর্তে ঢুকবে না তুমি ওকে (ইমতি) - উফফফফফ কি অবস্থা একটা । এইসব কি রে বাবা । ধুর , বিরক্ত লাগতেছে । এমন বুঝি কেউ কারো সাথে করে । তাও একজন মেয়ে হয়ে অন্য একটা মেয়ের সাথে । সে কেমন লেখিকা । - আবার কাল শুনাবো নীলা আর ইমতির কাহিনি সেই অবদি সবাই ভালো থাকবেন আর সবাইকে ভালো রাখবেন । ** চলবে **
বেঁচে আছি সপ্ন নিয়ে <mark>বেঁচে আছি সপ্ন নিয়ে </mark> Reviewed by শেষ গল্পের সেই ছেলেটি on আগস্ট ১২, ২০১৯ Rating: 5

কোন মন্তব্য নেই:

Blogger দ্বারা পরিচালিত.