বিপজ্জনক প্রেমিকা

আনুশকা কিছু বুঝতে পারছেনা । । হঠাৎ ঘুমের মধ্যে এমন হলে যে কেউ ঘোরের মধ্যে থাকে । । আনুশকা একজোড়া হাত ধরে ফেলে জোরে জোরে চিৎকার দিতে লাগলো । । কেউ আনুশকার মুখ চেপে ধরে ফেললো । । হতে পারে এটা ঐ হাত গুলোর মালিক । । আনুশকার মুখ চেপে ধরে একটানৈ কোলে তুলে নিলো সেই হাত জোরার মালিক । । আনুশকার খুব ভয় করছে,,,, ভয় হওয়ার কথা বিকোজ হঠাৎ এমন কারো সাথে হলে তো ভয় পাবে স্বাভাবিক । । বাট লোকটার গায়ের গন্ধ আনুশকার চেনা লাগছে । । এটা তো সেই গায়ের গন্ধ যে এখানে তাকে এনেছে । । আনুশকা এবার হাফ ছেড়ে বাচলো । । কিছুটা ভয় কমেছে তার । তাই সে চুপচাপ করে দেখছে কি হচ্ছে । । আসলে এটা আগুন ছিলো । আগুন আনুশকাকে করিডর দিয়ে ছাদে নিয়ে যাচ্ছে । । আগুন : হঠাৎ আনুশকার কথা মনে পড়ছে তাই ওকে দেখতে চলে গেলাম । । রুমে গিয়ে দেখি আনুশকা ঘুমাচ্ছে । । জানালা দিয়ে বাইরের ল্যমপোষ্টের আলোতে আনুশকাকে পুরো #চাদঁ এর মতো লাগছে । । আনুশকাকে আমি চাদঁ বলে ডাকতাম ছোটবেলায় মাঝে মাঝে । । আমি যখন ঘুমিয়ে পড়তাম তখন আনুশকা ওর ছোট ছোট হাত দিয়ে আমার পায়ে হাত বুলাতো । । তখন ঘুমের মধ্যে আমি আমার চাদঁকে ফিল করতাম । । এটাই আমার আনুশকা,,, আমি ইচ্ছে করে ঘুমানোর ড্রামা করতাম । । ও ওর ছোট ছোট আঙুল দিয়ে আমার কোমরে সুরসুরি দিতো তখন আমি মিট মিট হাসতাম । আর ওর প্রতি আমার ভালোবাসা ফিল করতাম । । তখন ওর তিন বছম বয়স ছিলো এগুলো এখন মনে থাকার কথা না । । তাই হঠাৎ ওকে ঘুমন্ত সিচিয়েশনে দেখে আমিও ওর মতো করে এমন বিহেভ করলাম । । আগুনের ঘোর কাটলো সে আনুশকাকে কোল নেওয়া অবস্থায় বলল,,,, । আগুন : আনুশকা সুইটহার্ট সামনে তাকিয়ে দেখো । । আনুশকা সামনে তাকিয়ে দেখলো,,, । আনুশকা : আমি সামনে তাকিয়ে দেখলাম । বিশ্বাস করতে পারছিনা । । আমার সামনে অজস্র জোনাকি পোকা । । মিট মিট করে জ্বলছে জোনাকি পোকা গুলো । । হঠাৎ খেয়াল করলাম অনেক গুলো ঝারের মধ্যে কতগুলো জোনাকি পোকা বন্ধি । । আমার জন্য এই লোকটা এতো কিছু করলো । । আমি কোল থেকে নেমে যেতে চাইলাম বাট পারলাম না । । আগুন : আমার সুইটহার্ট নেমে যেতে চাইলো । । আমি নামতে দিলাম না । । কত বড় সাহস আমি ওর জন্য এতো কিছু ডেকোরেট করলাম,, যেনো ওকে কোলে নিয়ে জোনাকি বিলাস করতে পারি । । আর ও আমার কোল থেকে নেমে যেতে চাইছে । । দিলাম এক ধমক । । আনুশকা : হঠাৎ আনন্দের মাঝে ভমিকম্প কোথা থেকে এলো । । তখনই বুঝতে পারলাম এটা ভুমিকম্প না এই লোকটার কর্কশ কণ্ঠ । । আমি ভয়ে চুপ হয়ে গেলাম । । আগুন : ভোর হতে আরো কয়েক ঘণ্টা সময় লাগবে । । ততক্ষণ পর্যন্ত তুমি আমার কোলে থাকো এন্ড জোনাকি পোকা গুলো দেখো । । আনুশকা : লোক কি পাগল না ছাগল,,, এতক্ষণ কেউ কাউকে । আমি তো মাশআল্লা ৫০ কেজি । আনুশকা : আচ্ছা আমাকে এভাবে কোলে রাখতে আপনার কষ্ট লাগছেনা??? । আগুন : তোমার ওয়েট কত??? । আনুশকা : ৪৮ কেজি??? কেনো আমি কি বেশি ভারি?? । আগুন : আমার তোমাকে ৩০ কেজি লাগছে,,, এমন কেজি কেজি নিয়ে আমি পাচঁ মাইল রোডে রান আপ করি । । সেই তুলনায় তুমি কিছু না । । তোমার ওজন আরো বাড়াতে হবে ।কাল থেকে তোমার খাবার খাওয়ার টর্চার শুরু হবে ।রেডি থাকো সুইটহার্ট । । আনুশকা ঢোক গিলতে গিলতে ভাবলো । । আনুশকা : লোকের ধম আছে বলতে হবে । । এই লোক আসলেই # Dangerous boy. । চুপচাপ করে থাকি না হলে আমাকেই রড ভেবে দৌড় শুরু করবে । । আনুশকা চুপচাপ করে জোনাকি দেখতে থাকলো । । আগুনের ফিলিং টা জাস্ট বলা যাবেনা । । সে যেনো একটা স্বর্গের মধ্যে আছে আনুশকাকে কোলে নিয়ে । আনুশকার দিকে আগুন এক ধ্যানে তাকিয়ে আছে । এভাবে সকাল হয়ে গিয়েছো । । আগুন আনুশকাকে কোলে নিয়ে নিচে নামলো । । কিচেনৈ নিয়ে গেলো ॥ আগুন : কি খাবে বলো ??? নিজের হাত দিয়ে বানিয়ে খাওয়াবো । । আনুশকা :: কি করে ভাবলেন আপনার মতো ঢেড়সের মতো লোকের হাতে ব খাবার খাবো । । আগুন : কি বললে ?আরেকবার বলো?? । আনুশকা : আমি কিছু বলিনি ,জিহ্বায় কামড় দিয়ে বললো কথাটা । । আগুন : কিসের যেনো ঢেড়স বললে । । আনুশকা : না মানে আমি ঢেড়স খেতে লাইক করি । । কিছুটা ভয়ে ভয় কথাটা বললো । । আগুন মুচকি হেসে খাবার তৈরি করে আনুশকাকে খেতে দিলো । । আনুশকাকে খেতে দিয়ে তার দিকে তাকিয়ে থাকলো আগুন । । আনুশকা ভয়ে ভয়ে খাবার খাচ্ছে না । । আগুন ভয় পেয়ো না ।এখন কিছু করবোনা ,করার জন্য সারাজীবন পড়ে আছে । ।বাট খাবার মুখে লেগে থাকে তাহলে ,,, বলে একটা শয়তানি হাসি দিলো । । অনেক্ষণ হয়েছে আগুনকে দেখতে না পেয়ে আনুশকা পিছনের দরজা দিয় পালালো । আনুশকা একটা রাস্তায় দৌড়াতে দৌড়াতে পৌছালো । । হঠাৎ কিছু ছেলের আওয়াজ পেলো । । ছেলেগুলো : ঐ দেখ একটা পরি । এটা বলে আনুশকার কাছে আসতে লাগলো । । আনুশকা দোড়াতে গেলে একজন তার শাড়ি ধরে টান দিলো । । হঠাৎ আগুন চিৎকার করে উঠলো ,, আনুশকা ,,,, ঘটনা স্থলে,,,,, আগুন আসার কিছুক্ষণ আগে,,,,,, । ছেলেগুলি আনুশকাকে বাজে কথা বলতে লাগলো । । আনুশকার দিকে এগুতে লাগল,,,, । আনুশকা ভয়ে ভয়ে পিছতে লাগলো । । এরমধ্যে একটা ছেলে আনুশকার শাড়িতে হাত দিলো এন্ড শাড়ির আচল ধরে টান দিলো । । আনুশকা মাটিতে পড়ে গেলো । আনুশকা খেয়াল করলো তার সামনে দুটি পা । । এটা আর কেউ নয় সয়ং আগুন । । আগুন আনুশকাকে এই অবস্থায় দেখে রাগে ক্ষোভে চিল্লাতে শুরু করলো । । আনুশকাকে উপরে টেনে তুলল আর নিজের পরনের শার্ট আনুশকাকে পড়তে দিল । আগুন এবার ভয়ঙকর হয়ে উঠলো । সে কি করবে নিজেও জানেনা,,,, তার কলিজার টুকরো আনুশকাকে এভাবে কেউ অসম্মান করবে এটা সে মেনে নিতে পারছেনা । । আগুন ঐ ছেলেগুলোকে মারতে শুরু করলো । । একেকজনকে একক রকম ভাবে ইচ্ছে মতো পিটালো । । যেই ছেলে আনুশকাকে বাজে বকেছে তার পুরো ফেস রাস্তায় ঘষতে শুরু করলো,, যতক্ষণ পর্যন্ত ফেসটা রক্তাক্ত না হয় । । এটা দেখে আনুশকা ভয়ে মাথা নিচু করে রাখলো । এরপর যেই ছেলে আনুশকার শাড়ি টাচ করেছিলো সেই ছেলের হাত ভেঙে মুচড়ে ধুমরে দিলো আগুন । । আরেকটুর জন্য হাত ছিড়েই যেতো । । অন্য আরেকটা ছেলের হাতে আনুশকার শাড়ি ছিলো । । সেই ছেলেকে শাড়ি দিয়েই গলায় ফাস দিতে থাকলো আগুন । । ছেলেটার ধম বন্ধ হওয়ার মতো সিচিয়েশন তৈরি হয়,,, তারপর ছেলেটা রক্ত ভমি করে । । শেষের ছেলেটার দুই পা ভেঙে ফেলে আগুন । । আগুন এবার আনুশকার দিকে তাকালো । । আনুশকার ভয়ে হার্ট অ্যাটাকের অবস্থা । । আগুন ছেলেটার হাত থেকে শাড়ি নিয়ে আনুশকাকে শাড়ি না দিয়ে নিজের গলায় স্টাইল করে মাফলারের মতো পড়লো এন্ড বাকিটা নিজের হাতে রাখলো । । আগুনের বডি বেশ রক্তাক্ত হয়েছে ঐ ছেলে গুলির রক্তে । । পুরো রাক্ষস হায়েনার এক ভয়ঙকর জিবের মতো লাগছে আগুনকে । । আগুন আনুশকার সামনে এসে একটা হাত মুষ্ঠি বদ্ধ করলো । । আনুশকা : আমার ভিষন ভয় করছে,, হঠাৎ এইভাবে সামনে এসে হাত কেনো মুঠো বন্ধি করলো,, । তাহলে কি আমাকে উনি মারবেন ঐ ছেলেগুলির মতো । আমাকে মারলেতো আমি শেষ,,, উনার যে ফিট বডি,,,,, । আমাকে মারলেতো আমি শেষ,,, । আগুন : আমি ওর কাছে যেতেই ও চোখ বন্ধ করে দিলো । আগুন আনুশকার পিছনে থাকা দেয়ালে একটা ঘুষি দিলো । । এক ঘুষিতে পুরো দেয়াল ভেঙে গেলো । । আনুশকা ঘাবড়ে কান্না শুরু করে দিলো । । আগুন কিছু না বলে আনুশকার হাত ধরে গাড়িতে বসালো,, । তখনও আনুশকার গায়ে আগুনের শার্ট ছিলো । । আগুন চুপচাপ ড্রাইভ করছে । আর আনুশকা ভাবছে,, এতক্ষণ হয়ে গেলো লোকটা আমাকে কিছু করছেনা কেনো । আমি এতো বড় ঘটনা করলাম তারপরও আমাকে কেনো কিছু করছেনা আর বলছেনা কেনো । । ধুর কি ভাবছি,, কিছু না বললেই তো ভালো । । আমি বরং চুপচাপ থাকি । আগ বাড়িয়ে কিছু বলতে গেলে নিজেরি ক্ষতি,,, । আগুন বাংলো বাড়িতে গাড়ি থামালো আর আনুশকার হাত ধরে ভিতরে নিয়ে গেলো । । তারপর রুমে নিয়ে গেলো এবং ওয়াস রুমের দিকে আনুশকাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলৈ দিলো । । আনুশকা : এখন উনি করবেন,, নিজের হাত দিয়ে কি উনি আমাকে গোসল করাবেন । । আগুন : ঠিক ধরেছো সুইট হার্ট,, এই বলে আগুন আনুশকার দিকে এগিয়ে শাওয়ার ছেড়ে দিলো । । দুইজনেই শাওয়ারের নিচে । টুপটাপ পানি পড়ছে । । আনুশকা ভয়ে চোখ বন্ধ করেদিয়েছে । । আগুন কিছু ক্ষণ এভাবে থেকে আনুশকাকে হঠাৎ ছেড়ে দিয়ে চলে গেলো । । আনুশকা : আমি কিছুই বুঝলামনা । । আনুশকা ফ্রেস হয়ে রুমে গিয়ে খাটে বসলো । । হঠাৎ নিচে জিনিস পত্র ভাঙার শব্দ শুনলো । । নিচে গিয়ে দেখে,, সব জিনিসপত্র ভেঙে গুড়ো করছে আগুন । । আগুন জোরে জোরে চিল্লাচ্ছে । যেনো কোন হিংস্র বাঘ হয়েগেছে আগুন । । আনুশকাকে আগুন দেখতে পেয়ে আনুশকার দিকে এগুতৈ লাগলো । । আনুশকার পাশের একটা বিশাল শপিজে একটা লাঠি দিয়ে বারি দিলো । । আনুশকা ভয়াবহ এরকম অবস্থা দেখে এক দৌরে উপরের রুমে চলে গেলো । । একটু পর আগুন একটা পেপার নিয়ে এলো আর আনুশকাকে সাইন করতে বললো । আনুশকা প্রথমে সাইন করতে না চাইলেও পরে আগুনের হায়েনার মতো চেহেরা দেখে । আগুন চলে গেলো ।আনুশকা একটু পর নিচে গিয়ে আগুনের সাথে খেতে বসলো । আশ্চর্যের বিষয় আগের মতো আগুন কিছু করছেনা । আনুশকা বিষয়টি খেয়াল করলো তারপর চুপচাপ খেয়ে তাড়াতাড়ি উপরে চলে । । আগুন আনুশকা চলে যাওয়ার পর একটা শয়তানি হাসি দিলো । । আগুন আনুশকার রুমে গিয়ে দরজা লক করে দিলো । । আনুশকা আচমকা শোয়া থেকে উঠে বসলো । । আগুন নিজের শার্টের বোতাম খুলে খুলে আনুশকার দিকে এগুতে লাগলো ,,,,, । চলবে,, ,
diane555 থেকে নেওয়া থিমের ছবিগুলি. Blogger দ্বারা পরিচালিত.