Recents in Beach

কালো মেয়ে

রুমে ডোকার সাথে সাথেই মেয়েটি এসে আমার পা জরিয়ে ধরে কান্না করতে লাগলো,, আমি-- কি বেপার তুমি কান্না করছো কেনো? ----- আপনি আমাকে ক্ষমা করে দিন প্লিজ, আমি-- কেনো,আমি তোমাকে কিসের জন্য ক্ষমা করবো আর তোমার অপরাধই বা কি? --- আসলে আমার মামি আমার ইচ্ছার বিরুদ্ধে আপনার সাথে বিয়ে দিয়ে দিছে, আমি আপনাকে বিয়ে করে আপনার সুন্দর জীবন নষ্ট করতে চাই নি! --- কি বলছো তুমি একটু পরিষ্কার করে বলো? --- মা বাবা মারা যাওয়ার পর মামা আমাকে দেখাশোনা করার জন্য তার বাসায় নিয়ে আসে, কিন্তু আমার মামি তা কিছুতেই মেনে নিতে পারেনি,সব সময় আমাকে কষ্ট দিত,বাসার সব কাজ আমাকে দিয়ে করাতো, আমি দেখতে কালো বলে মামাতো ভাইবোন কেও আমাকে দেখতে পারতো না,, সবাই আমাকে অবহেলা করতো শুধু মাত্র মামা বাদে সবাই আমাকে সবসময় বকা ঝকা করতো, মামি আমাকে তাদের বাসা থেকে তারানোর জন্য আমাকে আপনার সাথে বিয়ে দিছে,, ---- কিন্তু বিয়ে তো হওয়ার কথা ছিল তোমার মামাতো বোনের সাথে সে তো পালিয়ে গেছে, তার জন্যই তো মান সম্মান বাচানোর জন্য তোমার সাথে আমার বিয়ে হইছে,, -- না আমার মামাতো বোন পালায় নি, --- মানে? --- সে তার নানার বাড়ি আছে? --- কি বলছো এসব,, আমিতো জানি সে তার প্রেমিকের সাথে পালিয়ে গেছে? --- আপনি ঠিকই জানেন, কিন্তু সে সত্তিই তার নানা বাড়ি আছে! ---- কিন্তু এমন কেনো হলো? --- আমি দেখতে কালো তাই কেও আমাকে বিয়ে করতে চায়নি, মামি আমাকে বিয়ে দেওয়ার সর্বচ্চ চেষ্টা চালিয়ে যায়,,যাতে করে মামা বাড়ি আমার যে সম্পত্তি রয়েছে তা আমার মামাতো ভাইবোন ভোগ করতে পারে,,তার জন্য সেদিন আমার বদলে মামি বুদ্ধি করে আমার মামাতো বোন কে আপনাদের দেখিয়েছে যাতে করে আপনারা তাকে পছন্দ করে আপনার বউ করতে রাজি হন,, আমার মামাতো বোনের শহরের এক বড় লোকের সাথে বিয়ে ঠীক হয়ে আছে,, আমাকে তাড়াতে পারলেই তার বিয়ে হয়ে যাবে,, তাই বিয়ের দিন মামাতো বোনকে মামি বুদ্ধি করে তার নানা বাড়ি পাঠিয়ে দেয়,, আর আপনার সাথে আমার ইচ্ছার বিরুদ্ধে বিয়ে দেয়,,,আমাকে দয়া করে মাফ করে দিন,, আমি আপনার সুন্দর গোছালো জিবনকে অগোছালো করতে চাই নি,,এই বিয়েটা সম্পুর্ন আমার ইচ্ছার বিরুদ্ধে হয়েছে,,,, ( বলেই সে কান্না শুরু করে দিলো () তার কথা ও কান্না শুনে নিমিষেই সব রাগ মাটি হয়ে গেলো,, ---- আরে আরে এভাবে বাচ্চাদের মতো কান্না করছো কেনো?( তার কান্নার মাত্রা আরও বেড়ে গেলো) কান্না বন্ধ করো প্লিজ,, এতে তো তোমার কোন দোষ নেই,, সব দোষ তো তোমার মামির,, তবুও সে কান্না করছে,, দিলাম এক ধমক সে নিশ্চুপ হয়ে গেলো,,, যা হবাব হয়ে গেছে এ নিয়ে আর কোন কথা আমি শুনতে চাই না,, এখন একটা কথা শুনে রাখো আজ থেকে তুমি।আমার স্ত্রী, তাই এখন থেকে আমার কথা মতো চলতে হবে? --- সে চোখে পানি মুছে অবাক দৃষ্টিতে আমার দিকে তাকিয়ে আছে,, কি মায়াবিনীই না লাগছে তাকে,, কালো হলেও চেহারায় এক প্রকার মায়ার ছাপ আছে,, যার জন্য তার উপর আমার সব রাগ মাটি হয়ে গেছে,,, এই যে শুনছো কি দেখো এইভাবে তাকিয়ে,, ---- আপনাকে দেখছি আপনার কথা শুনছি আর অবাক হচ্ছি! --- এতে অবাক হওয়ার কি আছে? -- ওই যে আপনি বললেন না এখন আমি আপনার স্ত্রী তাই আপনার কথা মতো আমার চলতে হবে তাই অবাক হলাম! --- হুম বলছি তাতে কি? আর তুমি তো এখন আমার স্ত্রী! --- আমার মতো কালো মেয়েকে আপনি স্ত্রীর মর্যাদা দিবেন? --- হুম দিবো তো "" আর দিবই না কেনো? ---- ছোঁট বেলা থেকেই কালো বলে সবার অবহেলা আর বকাঝকা খেয়ে মানুষ হইছি আর আপনি কি না আমাকে স্ত্রীর মর্যাদা দিবেন? ---- ওই এত কালো কালো বলছো কেন হুম? অন্য সব মেয়ের মতো তুমিও মেয়ে,, তারা না হয় কেও শ্যামলা কেও ফর্শা,, সবাইকে তো এক আল্লাহতালা সৃষ্টি করেছে।। যা হবার হয়ে গেছে এসব নিয়ে আমি আর কিছু শুনতে বা বলতে চাই না?!! এখন আমি শুধু জানি তুমি আমার স্ত্রী আর আমি তোমার স্বামী,, ---- সত্যি আপনি আমাকে স্ত্রী মর্যাদা দিবেন? ---- তোমার কি মনে হয় আমি তোমার সাথে মজা করছি,, কালো তো কি হইছে, তুমিও সবার মতই রক্তে মাংসে গড়া মানুষ,, আল্লাহতালা তোমাকে কালো বানিয়েছে ঠিকই কিন্তু অন্য সব মানুষ এর মতো পংগু বানায় নি,, বরং তোমার চেহারায় দিয়ে দিছে মায়ার ছাপ,,এখন যদি আর এসব নিয়ে কোন কথা বলো তাহলে কিন্তু আমি রুমের বাহিরে চলে যাবো,, --- এই না না,, আমি আর কিছুই বলবো না তবুও আপনি যাবেন না প্লিজ,, --- হুম এইতো আমার লক্ষি বউ বলেই তার কপালে একটা চুম্মু একে দিলাম,, সে লজ্জায় আমার বুকে মুখ লোকালো,, আমি তাকে কোলে করে খাটে নিয়ে গেলাম,, আচ্ছা আমি তো তোমার নামই জানলাম না! তোমার নাম কি? --- মোসা: তাসলিমা আক্তার,, --- তোমার আব্বু আম্মু কি করে মারা গেছেন? ---- আব্বু জম্মের আগেই মারা গেছেন আর আমার যখন ৮ বছর তখন মা ক্যান্সারজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন,, বলেই সে কান্না করে দিলো,, মনে হয় বাবা মার কথা মনে পরে গেছে,, আমিও কেমন এই মধুর রাতে তার কষ্ট টা আরও বাড়িয়ে দিলাম,,, আমি তাকে আমার বুকে জরিয়ে নিলাম,, তবুও সে কান্না করতে করতে আমার পাঞ্জাবী ভিজিয়ে ফেলেছে,, প্লিজ কান্না করো না,, সরি আমি তোমার মনের অবস্তা এখনো বুঝে উঠতে পারি নি,, প্লিজ আমার লক্ষি বউ কান্না করে না,, সে চোখে পানি মুছতে মুছতে বললো আরে আপনি সরি বলছেন কেনো, ভুলতো আমারই আমিই তো কান্না করছি,,আসলে বাবা মা মারা যাওয়ার পর কেও আমাকে ভালবাসে নি,, শুধু অবহেলা আর কষ্ট পেয়েই বড় হইছি,, এখন থেকে আর কারো অবহেলা আর কষ্ট তোমাকে সহ্য করতে হবে না,, এখন থেকে আমিই তোমাকে অনেক ভালবাসবো,, তোমার আর কষ্ট পেতে দিবো না,, এবার একটু হাসো প্লিজ,,, এবার তার মুখে এক চিলটে হাসির ছাপ লক্ষ করলাম,, আচ্ছা তুমি পড়াশোনা কতদুর করেছো,, কিছুদিন মাদ্রাসায় পরছি,, মামা বাড়ি আসার পর মামি আর মাদ্রাসায় যেতে দেয়নি! এখন থেকে তুমি নিয়মিত মাদ্রাসায় যাবে,,, আমরা আমাদের জিবনকে ইসলামিক নিয়ম কানুনের মধ্যে সাজিয়ে তুলবো, এভাবে সারারাত অনেক কথাবার্তার মধ্যেই শেষ হলো সকালে ঘুম থেকে ঊঠে বাহিরে গিয়ে দেখি.....আত্নীয় স্বজন যতজন ছিল সবাই ড্রয়িংরুমে বসে আছে, আর তাসলিমা তাদের সবার মাঝখানে মাথানিচু করে বসে আছে .................................... !!!!!!!!!! চলবে...................????